October 22, 2021, 3:58 pm

১৫ জুন থেকে শুরু হচ্ছে শাবির পরীক্ষা

নদী টিভি ডেস্ক:

করোনা মহামারীতে আটকে থাকা শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সেমিস্টারের স্থগিত থাকা পরীক্ষা ১৬ জন থেকে আবার শুরু হচ্ছে। পহেলা জুলাই থেকে শুরু হচ্ছে বিভিন্ন সেমিস্টারের পরীক্ষাও। অনলাইনে হবে এ পরীক্ষাগুলো। বৃহস্পতিবার (২৭) বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ এর সভাপতিত্বে ১৬৫ তম একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

করোনা মহামারীর কারণে আটকে থাকা বিভিন্ন বর্ষের সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা অনলাইনে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এ ক্ষেত্রে অনার্স এবং মাস্টার্স শেষ বর্ষের স্থগিত পরীক্ষা আগামী ১৫ জুন এবং প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা পহেলা জুলাই থেকে শুরু হবে। এর আগে গত বৃহস্পতিবার পরীক্ষার ধরণ, পদ্ধতি ইত্যাদি বিষয় ঠিক করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল ইসলামকে আহ্বায়ক ও রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেনকে সদস্য সচিব করে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়।
কোন পদ্ধতিতে অনলাইনে সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা নেওয়া হবে জানতে চাইলে কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে আমরা প্রতিটি কোর্সের পরীক্ষা নিবো দু’টি ভাগে। অথাৎ প্রতিটি কোর্সে একটি ক্রিয়েটিভ অ্যাসেসম্যান্ট ও একটি ভাইবা থাকবে। মোট ৭০ নম্বরের এই পরীক্ষায় ৩০ থাকবে ক্রিয়েটিভ অ্যাসেসম্যান্টে ও বাকি ৪০ নাম্বার থাকবে ভাইবায়।
তিনি বলেন, মূলত শিক্ষার্থীদের সঠিকভাবে যাচাই করার জন্য আমরা ভাইবা রেখেছি এবং এটি অনলাইনে অনুষ্ঠিত হবে। ক্রিয়েটিভ অ্যাসেসম্যান্ট জমা দেওয়ার পর যে কোন দিন ওই কোর্সের ভাইবা হতে পারে। আমরা বিভাগগুলোকে দায়িত্ব দিয়েছি তারা ঠিক করবে কবে ভাইবা নিলে তাদের এবং শিক্ষার্থীদের সুবিধে হয়। ক্রিয়েটিভ অ্যাসেসম্যান্টের জন্য জুম অ্যাপ, গুগল ক্লাস রুম এবং অন্যান্য অনলাইন প্লাটফর্ম ব্যবহার করে নির্দিষ্ট তারিখে শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের একটি প্রশ্নপত্র সরবরাহ করবেন। প্রশ্নপত্র সমাধানের জন্য সময় দেওয়া হবে ১২ ঘন্টা এবং প্রশ্নের উত্তর হাতে লিখতে হবে। নির্দিষ্ট সময় শেষে উত্তরপত্রের ছবি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তুলে অনলাইন প্লাটফর্ম জুম অ্যাপ বা গুগল ক্লাসরুমে আপলোড করতে হবে শিক্ষার্থীদের।
এদিকে অনার্স এবং মাস্টার্স শেষ বর্ষের কিছু বিভাগের শিক্ষার্থীদের শুধুমাত্র ভাইবা ছাড়া আর কোন পরীক্ষা বাকি নেই তাদের ক্ষেত্রে কি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাদের ভাইবা সরাসরি অপলাইনে নেওয়া হবে। এ বিষয়ে বিভাগগুলোকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তারা সিদ্ধান্ত নিবে।
উল্লেখ্য, গত বছরের ৩১ মার্চ থেকে অনলাইনে ক্লাস করছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা। অনলাইনের মাধ্যমে দুই সেমিস্টারের ক্লাস সম্পন্ন করেছেন তারা। করোনাকালীন সময়ে চলতি বছরের শুরুতে অনার্স শেষ বর্ষ ও মাস্টার্সের পরীক্ষা সরাসরি শুরু হলেও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের কারণে তা শেষ করা সম্ভব হয়নি। তবে এবার অনলাইনেই সম্পন্ন হবে সবার পরীক্ষা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


লাইক দিন
%d bloggers like this: