October 22, 2021, 3:59 pm

ওসমানীনগরে লন্ডন প্রবাসীর বাড়ীর রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে চাঁদা দাবী

ডেস্ক রিপোর্ট:

সিলেটের ওসমানী নগরের রাঙ্গাপুর গ্রামে এক লন্ডন প্রবাসীর বাড়ীর চলাচলের একমাত্র রাস্তায় উদ্দেশ্য মূলক ভাবে বাসার সিঁড়ি নির্মাণ করে ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবীর অভিযোগে গত রোববার জেলা পাুলিশ সুপার বরাবর অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। ওসমানীনগর উপজেলার রাঙ্গাপুর গ্রামের মৃত সৈয়দ আর্জমন্দ হোসেনের ছেলে লন্ডন প্রবাসী সৈয়দ তফজ্জুল হোসেন বাদী হয়ে এ অভিযোগ দেন। অভিযোগে একই গ্রামের মৃত মনু মিয়ার ছেলে জাফরান মিয়া ও মৃত সাইদ উল্লাহর ছেলে টনু মিয় কে বিবাদী করে এবং অজ্ঞাত ৮/১০ জনকে বিবাদী করে এ অভিযোগ দেন। অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, গত ৯ মে থেকে এখন পর্যন্ত বিবাদীরা তার বাড়ীর সামনের রাস্তা যেটি তিনি নিজ অর্থায়নে জনগণের চলাচলের জন্য ১ লক্ষ টাকাব্যয় করে তা বিবাদীরা বন্ধ করে তার পরিবারের লোকজন সগ ১০/১২ টি পরিবারকে কার্যত গৃহবন্ধী করে রেখে তার কাছে ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করেন। বিবাদীরা এলাকায় চুরি, চামারী, মদ, গাঁজা ব্যবসার সাথে জড়িত।

তিনি তার এজাহারে আরো উল্লেখ করেন, আমি সৈয়দ তফজ্জুল হোসেন। একজন ব্রিটিশ প্রবাসী। এলাকায় আমি ও আমার পরিবার শান্তিপ্রিয় লোক হিসেবে পরিচিত। পক্ষান্তরে বিবাদীগণ খারাপ চরিত্রের লোক। এলাকায় ধাঙ্গা-হাঙ্গামা, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি, ঝাগড়াঝাটিতে ব্যস্ত থাকে। তারা ভারতীয় অবৈধ বিড়ি, মদ, গাঁজা বিক্রি করে এলাকার লোকদের বিপথে পরিচালিত করে। তাদের কারণে গ্রামের মধ্যে হরহামেশা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। এলাকার চুরি চামারি, ডাকাতি, ছিনতাই তাদের পেশা। এলাকার লোকজন প্রতিবাদ করলে তারা নিরীহ লোকজনের উপর প্রায়ই হামলা করে। তাদের ভয়ে এলাকার লোকজন মুখ খুলতে সাহস পায় না। ১নং বিবাদী এলাকায় প্রায়ই বিশৃঙ্খলা করে। সে একজন চাঁদাবাজ হিসেবে পরিচিত। তার আপন ভাই জয়েদ হোসেনের বিরুদ্ধে চুরির অভিযোগে মামলা রয়েছে। সে এলাকায় মোবাইল চোর হিসেবে পরিচিত। রাতের বেলা অনেকের ঘর চুরি করে। এমনকি তার বড় ভাইয়ের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের মামলা চলমান রয়েছে।
বিবাদীগণ আমাদের পাড়া প্রতিবেশী। এলাকায় আমরা ১০-১২টি পরিবার পাশাপাশি বসবাস করি। আমাদের সবার বাড়ীর সামনে দিয়ে এই ১০-১২টি পরিবারের চলাচলের একমাত্র রাস্তা। আমাদের সকলের যৌথ মালিকানায় রাস্তাটি ব্যক্তিগত জমি দিয়ে তৈরী করা হয়। আমি আমার ব্যক্তিগত টাকায় সকলের চলাচলের সুবিধার্তে ১ লক্ষ টাকা খরচ করে মাটির কাজ করিয়েছি। বিবাদীগন অবৈধ ভারতীয় বিড়ি ও গাজা ব্যবসার কারণে আমরা সকলে তাদের এহেন কাজের প্রতিবাদ করি। এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে প্রায়ই দেশে থাকা আমার পরিবারের লোকজন ও অন্যান্য পরিবারের লোকজনের উপর হামলা করে। তাদের ভয়ে দেশে থাকা কেউ মুখ খুলে না। তারা প্রায়ই আমাদেরকে প্রাণে হত্যার হুমকি দেয়। তাদের এহেন কার্যকলাপের প্রতিবাদ করায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আমাদের বাড়ীর চলাচলের একমাত্র রাস্তা বন্ধ করে দেয়। পরবর্তীতে তারা স্থায়ী ভাবে রাস্তা বন্ধ করার পায়তারা করে। এলাকার গন্যমান্য লোকজন রাস্তা বন্ধ না করার অনুরোধ করলেও তারা তা অগ্রাহ্য করে। বর্তমানে রাস্তা স্থায়ী ভাবে বন্ধ করার উদ্দেশ্যে রাস্তার মধ্যে তাদের বাসার সিড়ি নির্মাণ করে রাস্তা বন্ধ করে দেয়। এতে আমাদের চলাচলে মারাতœক ব্যাঘাত ঘটছে। আমাদের এই ১০-১২টি পরিবারের লোকজন তাদের অবৈধভাবে নির্মিত সিঁড়ির কারণে এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে পারে না। ১০-১২টি পরিবারের কোমলমতি শিশুরাও বাড়ি থেকে বের হতে পারছে না। সিঁড়ি ডিঙিয়ে চলাচলের চেষ্টা করলে তারা দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয় হামলে পড়ে। এই রাস্তা ব্যবহার করলে প্রাণে হত্যার হুমকি দেয়। বর্তমানে রাস্তা না থাকায় দেশে থাকা আমার পরিবারসহ অপরাপর পরিবার কার্যত গৃহবন্ধী। জরুরী প্রয়োজনে গ্রামের ক্ষেতের আইল দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। এলাকার গন্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ একাধিকবার তাদেরকে রাস্তায় সিঁড়ি নির্মাণ না করার অনুরোধ করলেও তারা তা অগ্রাহ্য তরে। উভয় বিবাদীর সাথে আমি প্রবাস থেকে ভিন্ন ভিন্ন ভাবে যোগাযোগ করে রাস্তাটি খুলে দেওয়ার অনুরোধ করলে তারা রাস্তা খুলে দেওয়ার বিনিময়ে তাদের সিড়ি নির্মাণের ব্যয় বাবত আমার কাছে ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। অন্যতায় তারা রাস্তা খুলে দিবেনা বলে জানায়। এমনকি এই রাস্তা ব্যবহার করার চেষ্টা করলে দেশে থাকা আমার পরিবারের লোকজনকে প্রাণে হত্যা করবে বলে হুমকি দেয়। দেশে থাকা আমার পরিবারের বা অপরাপর পরিবারের লোকজন এ নিয়ে আইনের আশ্রয় নিলে তারা প্রাণে হত্যা করবে বলে হুমকি দেয়। এমনকি আমি দেশে আসলে তারা আমাকে হত্যা করবে বলে হুমকি দেয়। তিনি অভিযোগের অনুলিপি সিলেট বিভাগীয় কমিশনার, ডিআইজি মহোদয়, জেলা প্রশাসক, পুলিশ কমিশনার, দুর্নীতি দমন কমিশন, র‌্যাব-৯, উপজেলা চেয়ারম্যান, ওসমানীনগর, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, ওসমানীনগর, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, ওসমানীনগর থানা প্রেরণ করেছেন বলে এজাহার সূত্রে জানাযায়।

 


আপনার মতামত লিখুন :

One response to “ওসমানীনগরে লন্ডন প্রবাসীর বাড়ীর রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে চাঁদা দাবী”

  1. Talukdar says:

    Not right now and again

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


লাইক দিন
%d bloggers like this: